আক্ষেপ

অনেক কিছু করার ছিল

বুঝেছি এলে রাত….

অনেক কথা বলার বাকী

বুঝবে কোন সে জাত?

অনেক কিছু করব বলে

যেই করেছি পণ…

ব্যস্ত সবাই আটকাবে পা

চেষ্টা আমরন!

সঙ্গী যাদের অপূর্ণতা

শূন্য চারিপাশ

তাদের মধ্যে হয় যে সদা

নেতির বসবাস!

স্বচ্ছ জলে যারাই কেবল

খুঁজে বেড়ায় কাদাঁ

অন্যের জয়ে মুর্ছা যে হয়

তারাই সর্বদা!

প্রেমালাপ

অবর্ণীল, আজ-কাল তুমি বড্ড ধোঁয়াটে;

জগৎ হাতড়ে খোঁজ, পাই না তোমার মোটে!

অবর্ণীল, নীল আমার এখনো ভীষন প্রিয়;

তাই বুঝি তুমি নীলেই হলে, আকন্ঠ আবৃত?

অবর্ণীল, আমার জন্যেই কি কেবল তোমার এত কঠিন দন্ড?

যাবার বেলায় কেউ বুঝি করে, এমন রক্তারক্তি কান্ড?

তুমি ভাব নির্বোধ আমি?

বুঝবোনা তোমার মনমানি?

আমিও তবে তোমারই বাঁকা হাড়;

হারবেও তুমি, হেরেছ যেমনটি অন্য ক্ষনে বারে বার!

আচ্ছা..একটি কথা রাখতে কি তুমি পারো?

আমার পূর্ণ ক্ষণে, তুমি ছুটির জোগাড় করো!

ভবেতে খেলার সাঙ্গ যখন হবে;

এপার থেকে তুমিই আমায় একলা নিয়ে যাবে!

নইলে কিন্তু হোথায় গেলেও আড়ি,

ও রাগ আমার ভাঙ্গবেনা তাড়াতাড়ি!

অবর্ণিল, ভাবছ তুমি আমায় পাগলী বটে,

নইলে কি কেউ এত অকারণ চটে?

অপেক্ষা তোমায় করাব আমি আরো;

দেখি সেথায় একলা কদিন খুশি থাকতে পারো!

আসব যেদিন, তোমার সুখের নিদ্রা সেদিন ভঙ্গ,

এই সময়ে চাও যদি নিও ৭০ হুরের সঙ্গ!

অবর্ণীল, আজ আর কোন কথার বারণ,

সাজার মেয়াদ তোমার-আমার এখনো হয়নি পূরন!

০১.০৭.২০১৯

Sample Of Creativity

Privilege Of Computer Science Major : Sample of my works!!! 😉

httpwwwgoff50com.000webhostapp.com

“The experience cannot be described in words.”

Amish, they don’t allow telephones into their houses, they have separate booth for telephone outside of their houses. which they only use for emergencies. If they get sick they will rely on home remedies, and if the sickness gets worsen then they will go to hospital and they will pay by cash. Because of the law they have social security numbers, but they will never use it to enjoy any benefits. They will use it only to join church. Keeping or driving cars is not allowed by their community. They get education only till 8th grades. They prefer wisdom over the institutional education. The school teachers have to be single young women, cause once they get married they will dedicate all their time to their families. Women have one option to choose between two. Get married or don’t get married and join the church. Men will shave till they aren’t married, after they get married they will never shave. They will grow beard and shave the moustaches. To the Amish, there are only two kind of people in the world, either Amish or English. If you aren’t an Amish then you are an English no matter which colour or country or culture you belong to. Once the Amish children turn to 16, they can get to experience the English life for one spring. During this one year they can drive, keep cellphones and enjoy all the luxury the world has. After one spring they have to come back and let their family members know what their decision is. Any member is free to leave. A member who has left may even be allowed to return within a short time. A member who leaves permanently will, however, be shunned. Shunning means that the person will forever be considered an outsider — a stranger — and will not be allowed to participate in the community ever again. And the most mesmerising fact is, only 5-10 percent chose to be English. Amish people have average 7 members in a family, so even 5-10 percent chose to be English, their population will be doubled in every 20 years. Amish people do farming or business as the earning source. Each family owns at least 50 acres of lands at least. They don’t rely on anyone except the God. When it comes to crime and punishment, the Amish live by a different set of rules — God’s rules, to be exact. In a community that is largely left to police itself, there are no courts and no set of punishments attached to a given transgression. And no matter what the crime, “if the perpetrator professes repentance before the church community, they are forgiven,” said sociologist Deborah Morse-Kahn, who has studied and written about the Amish. This community has no police, no court. Amish has three languages; German, Pennsylvanian Dutch and English. But they learn English just to communicate with non Amish people. Otherwise they use German or Pennsylvanian Dutch to communicate with their community.

পুরনো সৃতি……

ছোট বেলায় যখন স্কুল থেকে নতুন বই পেতাম তখন খুলে সবার আগে দেখতাম বাংলা আর সমাজ বই। আজ ও নাকে লাগে সেই কড়কড়ে নতুন বইয়ের ঘ্রাণ।বই দুটো খুলতাম পড়ার উদ্দেশ্যে নয়, খুলতাম বইয়ের ভিতরে আঁকা ছবি গুলো দেখার উদ্দেশ্যে। বই খুল্ললেই নদীর ছবি, বাঁশের বেড়ার সামনে দাঁড়ানো হাসিখুশি মুখ নিয়ে একান্নবর্তী পরিবারের ছবি, গাঁয়ের পথে কলসি কাঁখে কোন মায়ের ছবি যার ছোট্ট ছেলেটি আঁচল ধরে মায়ের পায়ের সাথে তাল মিলাতে ছুটছে, কৃষকের মাথায় বাঁশের মাথাল এক হাতে কাস্তে আর মুখে হাঁসি নিয়ে অন্য হাতে হুক্কা ধরে খোশমেজাজে গান গাইছে। আজ কাল দেখি ভারত থেকে বই আমদানি করা হয়…… কেউ কি বলতে পারেন কেন? আমাদের দেশে কি বই ছাপানো কারখানার অভাব? নাকি দেশের কেউ বই ছাপাতে জানেন না।এটা দেখার পর আরও একবার মনের ভিতরে দুরূহ ভাবনা মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে, আমাদের পরবর্তী প্রজন্ম বাংলাদেশ কে ভারতের আদলে দেখবেনাতো? ভারতের ছাপা বইয়ে বাংলাদেশের নদী, কৃষকের হাঁসি, মায়ের আঁচল, কিংবা একান্নবর্তী পরিবারের আনন্দ ঠিক সেভাবেই গর্বভরে এই প্রজন্মের দৃষ্টিতেও সুখের আমদ আর ছন্দভরে মনে দোল দেবে তো? আবার অল্পক্ষণেই মনে পড়ে যায়…… যে দেশে পরবর্তী প্রজন্মের অস্তিত্ব নিজেই একটা বিরাট হুমকি সেখানে তাদের স্বপ্ন দেখার জগত বা দৃষ্টি নিয়ে চিন্তিত হওয়াটা বেশ বড় নির্বুদ্ধিতা। অতএব আসুন সবাই সরকার কে সরকারের মতই থাকতে দেই…… তারা নিজেরা ভাল থাকতে থাকতে যদি ভাল থাকার উপর একঘেয়ে হয়ে আমদের ভাল থাকার কথা ভাবেন তবেই আমরা কৃতজ্ঞ! সেই আশায়ই ধুঁকছি দুঃখিত বাঁচছি।

A Dance To The Future

One of the common scenarios inside of the moving train is begging! People sings, sell different snacks, play instruments etc… etc… etc to earn money. Today was little different for me… 3 teenagers trying to make money as a return of true entertainment! I saw their courage to build the future…. I saw their potentiality to challenge all kind of obstacles in life and to fight back…. I saw their strong ability as a team not just to achieve but to snatch the place they deserve…. I saw some imperative seeds growing toward to build a deserving, fearless and imperious future!!!

Turn The Curse Into A Bless

Learning  is  a  process  that  deals  with  mental  and  physical  ability. Every  creations  in  this  world  spend  most  important  part  of  their  life  to  learn  how  to  survive  with  the  help  of  the  nature, how  to  be  faster, how  to  become  more  powerful, strong  and  perfect, how  to  lead. For  animals  the  process  is  just  to  follow  their  parents  or  their  animality. But  for  human  learning  is  more  than  just  to  follow  others. Because  for  human  there  is  always  a  scope  to  add  their  creativity  and  thoughts  with  what  they  have  learned. To  realize  the  creativity  and  make  better  function  of  it  their  thoughts  need  to  be  organized. To  dispose  thoughts  people  need  to  be  educated  and  here  ability  of  copying  plays  the  very  first  role  of  education. After  that  they  learn  to  put  their  experience  and  creativity  into  their  thoughts  to  create  something  outstanding. Without  copying  or  recording  it  is  not  possible  for  anyone  to  learn  and  create  anything  in  his  life.

A  Cheng  is  a  revolutionary  writer. He  knows  the  value  of  being  educated. In  his  story  King  Of  The  Children  he  creates  a  big  black  hole  to  the  readers  regarding  his  opinion. For  literature  it  is  very  useful  to  keep  good  imaginations  and  knowledge  of  reality  in  parallel. Because  a  good  literature  cannot  be  created  without  being  imaginative. And  all  the  materials  for  the  literature  cannot  be  found  from  real  life  all  the  time. So  literature  has  to  be  very  close  to  the  reality  and  very  artful  to  catch  and  hold  the  readers. During  the  cultural  revolution  in  China  a  lot  of  symbolic  signs  were  being  used  to  express  the  ideas  of  revolution. Such  as  huge  characters  expressed  the  rage  inside  of  minds  and  color  of  the  sun  was  red  that  was  the  symbol  of  inside  courage  and  nobility. To  realize  these  symbolic  ideas  people  need  to  be  very  idealistic  and  also  they  have  to  have  the  feelings  of  these  expressions. In  other  words  they  have  to  have  good  imagination  power  and  very  informative  that  is  close  to  the  reality. In  the  movie  we  see  that  the  director  picks  out  a  lot  of  symbolic   figures  to  make  the  feelings  real. Such  as  the “I” is  playing  with  a  shirt’s  sleeves, trying  to  move  a  useless  machine  with  his  skinny  body, we  can  assume  that  he   is  doing  heard  work  for  nothing  because  he  is  so  unable  to  make  any  changes. At  the  end  we  see  a  lot  of  wooded  sculpture  on  the  top  of  the  mountain, that  could  be  the  symbol  of  upcoming  revolutionary  world. Laidi’s  dirty  provocative  words  such  as  she  says:

Let me tell you: you can teach for a hundred years, I still know what you keep between your legs! Huh! Just a few days and he takes himself for a scholar.(P:182)

these  are  the  examples  of  how  the  writer  and  the  director  put  their  imaginations  and  sense  of  reality  together  to  create  and  redirect  the  article. It  is  not  possible  to  absorb  the  hidden  messages  without  thinking  or  being  creative  and  imaginative. When  a  person  learns  to  demonstrate  his  ideas  all  the  copying  and  recording  become  only  good  sources  of  knowledge. Because  creativity  express  what  he  has  learned  not  from  where  he  has  learned.

In  the  story  it  is  clear  that  the  writer  does  not  support  the  idea  of  copying. He  says Suddenly I stopped in mid-stride, took the dictionary out of my bag, opened it and wrote carefully: “To Wang Fu, from Laidi.” I looked at it, then added my name next to hers. Where  in  the  movie  King  Of  The  Children  the  director  leaves  the  message  for  Wang  Fu  is  Never  copy, not   even  from  dictionary. Even  though  they  both  has  taken  very  strong  stand  against  copying  but  there  is  still  a  slight  silent  gap  between  their  thoughts. For  the  writer  somewhere  copying  is  not  just  some  blindly  followed  things  or  rules. For  human  copying  can  be  a  way  of  learning  if  it  becomes  a  function  of  brain. Because  brain  is  the  most  powerful  weapon  for  human, it  crates  the  ability  to  think. With  that  power  a  person  discovers  his  own  creativity  and  learns  how  to  connect  his  own  thoughts, ideas  and  imaginations  together. When  copying  interacts  with  these  abilities  then  copying  becomes  just  a  stairs  to  enter  into  the  world  of  creation, it  becomes  just  a  backup  of  his  knowledge  and  a  strength  of  his  creativity.

In  the  story  and  the  movie  we  see  that  the  “I”  is  a  positive  source  of  spirit. He  holds  a  very  compassionate  character  and  voice. He  is  very  sweet  and  at  the  same  time  little  helpless. He  thinks  to  make  a  change  but  he  knows  the  darkest  part  of  the  society  is  very  strong  to  fight  back. He  said  not  to  copy  everything  blindly, he  wants  his  student  to  think  and  to  be   confident  about  themselves. But  on  the  other  hand  he  is  the  character  who  has  to  follow  the  rules  of  the  society  at  the  end. He  mentions  a  cow  story  to  his  student. He  says :

Cows have a craving for salty things and urine is salty, so they used to jostle each other to get my urine. Then they’d be very happy. Sometimes I even contained myself, saving my urine for the cows when we got up the mountain, that way not a drop was wasted. When you feed cattle with your own urine you’ll find they will always obey you loyally, they’ll treat you like a parent. (P:170-171)

by  this  comment  we  can  clearly  say  that  the  teacher  as  in  the  “I”  compares  himself  as  the  cattle  and  the  government  as  the  master  of  him. And  all  he  is  trying  to   say  that  even  he  knows  the  government  treats  him  with  the  nastiest  way  but  for  him  government  is  his  parent. He  has  no  power  to  fight  them  back  but  to  obey. In  other  words  we  can  say  even  he  does  not  like  the  idea  of  copying   and  following  but  he  reflects  as  a  silent  follower  of  the  society  and  the  government  rules.

In   both  story  and  movie  we  see  that  the  “I”  encourages  his  students  to  record  things  instead  of  copying. He  thinks  recording  will  make  them  more  confident  about  their  knowledge  and  their  ability  of  creativity. But  recording  is  not  any  personal  creation, it  is  an  experience  that  a  person  gets  from  his  everyday  life. And  if  someone  records  things  without  using  his  thoughts, without  learning  from  it, then  what  makes  recording  so  distinct  from  copying? It  won’t  be  any  help  to  anyone. Without  using  creative  thoughts  it  is  just  a  repetitive  formal  written  copy  of  real  experience. The  fundamental  of  learning  is  to  recognize  the  ability  to  create  something  new  and  unique. It  can  be  short, it  can  be  funny  but  it  has  to  be  individual. He  says:

I know he did not run, nor did he fly, and he didn’t get someone to carry him, but he walked. This way, he’ll gradually be able to write a bit more and be a bit clearer. It’s much better than copying. (P: 196)

here  we  can  see  that  the  student  uses  his  thought  of  walking, but  what  if  he  wouldn’t  mentioned  the  word? Would  it  be  his  own  creation? It  is  much  clear  that  without  using  the  creativity  everything  become  just  a  scanned  copy. Recording  also  has  the  same  value  as  copying  if  it  doesn’t  interact  with  thoughtful  mind  or  creativity. And  that  is  not  the  percept  of  learning. The  only  difference  between  recording  and  copying  is,  recording  is  a  collection  of  real  life  experience. Without  interfering  of  intellectuality  they  both  become  same  unproductive  elements  of  acquisition, and  they  both  destroy  the  goal  and  the  principles  of  learning.

In  both  story  and  movie  Laidi  is  a  symbol  of  life. She  has  a  lot  of  life  force  and  courage  inside  of  her  that  is  complete  opposite  of  the  teacher. Her  physical  attitudes  and  expressions  are  very  embarrassing  to  others. She  talks  in  a  dirty  way, she  uses  a  lot  of  seductive  words  while  she  talks. She  does  not  care  what  other  people  think  or  say  about  her  expressions  or  about  her  attitudes. She  just  love  to  be  the  way  she  is. We  can  assume  that  she  has  moderate  knowledge  over  words  and  education  considering  her  speech. She  loves  to  think  herself  as  a  very  intelligent  woman  and  she  has  the  ability  to  teach  in  school  even  she  is  not  so  sure  about  being  a  teacher. In  both  we  see  she  mentions  that  she  writes  songs. And  she  wants  to  be  a  singing  teacher  where  the  “I”  teaches. She  is  the  owner  of  the  dictionary, but  she  never  used  her  dictionary  to  find  out  appropriate  words  for  her  songs. So  literally  her  songs  belong  in  the  land  of  recording. Even  if  her  songs  are  the  property  of  recoding  but  she  might  get  her  writing  materials  from  the  central  radio. She  says:

Let me tell you, Brownie, even though there’s a lot of interference on Central Radio, I still listen to it every day. If Cultural Radio gives you first sentence I can give you the second.(P:187)

for  Laidi  the  radio  could  be  the  source  of  her  knowledge,  she  uses  radio  to  build  up  her  creation. Once  again  we  can  say  source  could  be  anything  but  the  creation  needs  to  stay  individual.

In  both  stories  we  see  that  Laidi  owns  the  book  but  she  does  not  have  enough  confident  about  her  writing  and  she  asks  for  help  to  the  “I”. She  wants  him  write  the  lyrics  where  she  can  compose  the  songs. Her  songs  is  more  likely  an  individual  thought  than  communal  or  recording. She  creates  songs  from  her  thoughts  and  her  thoughts  are  unorganized  and  also  inconsistent  to  understand. That  is  why  she  wanted  to  take  help  form  the “I”  to  give  her  songs  more  power  and  strength. Her  song  becomes  reality  when  the  students  sing  it. She  likes  the  idea  of  being  teacher  but  she  never  judges  herself  carefully. She  thinks  she  can  teach  because  she  has  the  ability  to  create  melody. She  might  have  the  good  imagination  but  imagination  cannot  always  deal  with  reality  to  process  or  to  develop  thoughts. Imagination  supplies  ideas  for  creativity  and  to  organized  the  ideas  people  need  to  be  very  passionate  to  their  creation. In  Laidi  we  do  not  see  that  passion  to  her  creation. Instead  of  being  passionate  she  is  fascinating  to  her  creativity. This  is  why  her  songs  are  not  very  persuasive.

At  the  end  of  the  discussion  we can say  that  learning  without  copying  is  not  possible. A  kid  cannot  learn  to  talk  or  walk  without  copying  from  others, a  student  cannot  learn  words  without  copying  characters. When  learning  cannot  be  recalled  then  that  learning  becomes  useless. The  main  intrinsic  of  learning  is  to  recognize  the  ability  of  creativity. And  to  create  something  people  need  to  organize  their  ideas, thoughts  and  imaginations. To  get  this  organizing  power  people  need  to  practice. And  for  practice  there  is  nothing  equivalent  as  literature. Because  literature  is  the  mixture  of  both  imagination  and  reality. It  creates  chances  to  put  reality  and  imagination  power  together  to  express  the  creativity  exclusively. Copying  and  recording  become  blessing  when  they  turn  the  power  of  creativity  on.

A Journey To The Museum….

Yesterday I have made a tour to “The Metropolitan Museum of Art : Islamic Art and History” for my History of Islamic Civilization class. I have met a moderate amount of stupid rich people on my way to the museum who love to wear a lot of fancy metallic ornaments and fancy clothes and talk about their boring internet base communicating life! Trying to let others know that how happy they are with all these stupid things! Some are so strange as the way they are! They are fascinated to think people who are not that rich, bear all kind of germs and viruses what are contiguous. If that “Non-Rich” person touches them by any chance they might get attacked by the bad viruses and they might get sick, so they get angry very easily when they feel that you might touch them! Whatever, that was not my point at all, I loved the tour with myself anyway!

My goal was to make the visit with my class, but there were some serious issues came up that was hard for me to avoid. First, I had to meet a very important person regarding my academic management. So I decided to attend my class with the morning session instead of the evening. When I went to meet that VIP, the person asked me to wait to have her comfortable time, I was generous for my own interest so I waited and waited about 35 minutes! After I am done with my meeting, I rushed towards the bus stop. Bus came after wasting my 15 minutes. I was still happy! I get into the bus I found someone about my age so I started talking. At the end of the bus stop we both had to get off in the middle of our certain chat and I started the most important part of the tour. “The Train” (very useful underground bison) and that was quite busy and occupied. I was happy till then! After I done with my train tour I was needed to take another bus, so I started asking people (I’m a 90s kid, and I prefer human rather than any machine) which way I should go? But they gave me wrong instructions ( I suppose that I should change my thought). Because, I trusted human I had to take a long U turn walk to come back to the place where I was started asking people. When I was back to the point I learned that I could take the desirable bus by walking 2 minutes from that point if I would depending on my electronic device! However, I took the bus, and stepped into the museum late. My class was somewhere and I was somewhere. So I had to make the whole amusing museum tour by myself and taking notes on to it (YUCK)! But I loved it!!! Even this is also not my point. My point is one especial terrible situation that I had to face while I was inside of the train.

The train was taking stoppage different platforms, people were getting off and on. I was blessed literally so I got a place to sit and the next sit became empty on the next stoppage and the incident had taken place:

With rush an egg-plant shaped Spanish man (I want to use PIG) got into the compartment and directly sat beside me. He was almost sitting on my lap, but somehow he decided to sit next to me. Okay, never mind! It was not done by purpose that what I thought and I let it go. The man was fat with a huge belly. Then he started playing with his arms, moving his left elbow, pocking me over and over, and playing a game on his cell phone. Wanted to say “You need to learn some manner while you sit next to a lady” but I hold my mouth and keep shut! He possessed one third of my sit still; I kept quiet. After that with sudden rush he started to search his pockets holding next to me, pretending he was looking for another cell phone. Right at that time he pushed me near to my armpit with his same left elbow. I got shocked and was about to say “Stop Being A PIG” but I didn’t do anything instead I just moved my neck to my right and look at him, he said “Ow I’m Sorry!” again, I let it go! A man standing in front of me just gave me a pity smile watching my situation.

Then I got little sneaky to know what is exactly that pig was doing. I saw there was another Spanish bulky man sitting next to that pig, but that pig was letting the man to have some extra space and trying to squeeze me as much as it can. Then I understood what I supposed to understand long before. But still, I was being gentle! It remained the same, playing its hands here and there and trying to laying its full piggy body over me and laughing as well as shaking its whole belly with the bit of laugh(eeeeeww…)! I was just being gentle and extra gentle. At last my platform knock around the corner. I stood up from my sit, grabbed my jacket with one hand, turned to the right and pull my 20LBs bag to my neck with a swift round motion and I felt AHHA!!! There You Go….. It did hit that stinky pig! Did not bother to look back after all. Train operator opened its door and I left. All I was listening, a voice from my inside “That’s it you filthy PIG! This is what you get after messing with a GIRL and that GIRL is not sorry AT ALL!”  I never felt this peace before in my life!

E: N: I was never being gentle, I was just planning to hit over that PIG’s face with my back-pack! 😛

ইউনিভার্সিটি… মেমোরিয়াল

মনে হয় এইতো সেদিনের কথা। ইউনিভার্সিটিতে কাক ডাকা ভোরে যখন ক্লাস করতে যেতাম সব অভাগী মিলে।কাক ডাকা ভোর বলছি কারন রাত দুটো তিনটে অব্দি গাল গপ্পো আর হাঁসির সমুদ্র পার হয়ে যখন ঘুমোতে যেতাম, সকাল আঁটটার ক্লাস তত বেশি আবছা সকালের মনে হত! ইউনিভার্সিটি সেও এক আজব জায়গা! সব কিছু শিখিয়ে পড়িয়ে এমন মানুষ বানাবে যে বান্দা বিগত জীবনে কি শিখেছিল তা তো ভুলবেই ভুলবে সাথে এটাও মনে করা দুষ্কর কোন কালে সে যে মানুষের ঘরে জন্ম নিয়েছিল। হলের জীবনের কি সেসব দারুণ অভিজ্ঞতাই না! আহা! বড্ড মনে পড়ে সময়ে অসময়ে! টেলিভিশন রুমে অকারনে বসে অন্যদের আনন্দের বারটা বাজানোর যে কি মজা! কোন কারণ ছাড়াই বেচারা টেলিভিশন কন্ট্রোলার কে কেবলমাত্র বিপাকে ফেলে নাস্তানাবুদ করার আনন্দেই অন্যদের সাথে গলা মিলিয়ে চেঁচিয়ে সমস্ত চ্যানেলের উদ্দেশ্যে চিৎকার করে বলা চে………ই………ঞ্জ!!! আর যখন সে বেচারি ঘাড় ঘুড়িয়ে চোখ পাকিয়ে বলে উঠত কি দেখবেন আপুরা? কেউবা আক্ষেপে সে যন্ত্রটি যখন ছুড়ে দিয়ে মুখ গুমরে হাত পা গুঁটিয়ে নিয়ে বসত সে আনন্দের সীমা অন্য কেউ কীভাবে বুঝবে! আর শেষের দিনগুলোতে সেবার ফুটবলের বিশ্বকাপ যখন এল আর সেমি ফাইনালে যখন আর্জেন্টিনা হেরে গেলো স্পেন এর কাছে কি নাচ টাই না নেচেছিলাম আর্জেন্টিনার ভক্তদের উদ্দেশ্যে! কিন্তু তার জন্যে মটেও দুঃখিত নই, ক্ষমা চাইব সেসব বন্ধুদের (যদি ওই সময়ে খানিকটা পিশাচ জাতীয় কিছু হিসেবেই প্রতিভাত হয়েছিলাম) কাছে তেমন আশা যেন তারা ভুলেও না করে কেউ! তারপর যখন ব্রাজিল হারল ফাইনাল এ? অত পুরনো গোবর ঘেঁটে কাজ কি!

হল এ কোন উৎসবের পূর্বপ্রস্তুতি হিসেবে যখন ঘোষণা করা হত আকর্ষণীয় খাবার দেয়া হবে। সে কি নিদারুণ করুণ আরামদায়ক দৃষ্টি হরনকারী দৃশ্য! আহা! যদি সেখানে আমাদের পরিবারের সদস্যদের উপস্থিতি বাঞ্ছনীয় করা হত! ইউনিভার্সিটিতে আদরের সন্তানদের পড়ানোর অভাবনীয় স্বাদের কল্পনার সমাপনি যে সেদিনই টানতে হত তাতে সন্দেহ বিন্দু মাত্র নেই কারো। অভুক্ত কাঙালরা সে কি খুশিই না হত! তবে সে খুশীর তীব্রতা ছিল ক্ষণস্থায়ী। হাত খরচের টাকায় অতি কষ্টের কাষ্ঠ হাঁসিতে কেনা খাবারের অমূল্য বাক্স হাতে পাবার পর মুহূর্তেই মুখের ফুঁ তে ফুলিয়ে ফুলে ফেঁপে ওঠা বেলুন এই বাঁধি কি ওই বাঁধলাম বলতে বলতেই ফটাস আওয়াজ করে লোক জানিয়ে ফাটার মতই দুর্বিষহ যন্ত্রণার হত সহ্য করা! তবুও অভুক্তের দলতো! সেও ভুলে যেতাম মুহূর্তেই! আর সব দুঃখ ভুলে মেতে নামতাম উৎসবের আমেজে ফুরফুরে মেজাজে। সেই সে হাঁসি কি যে হাঁসি! এখন এত মজার মজার খাবার খাই কিন্তু মনে হয় কত যুগ ধরে সেই আমেজে, ওরকম তৃপ্তির হাঁসি যেন আর বের হয় না কিছুতেই! সে হাঁসি সত্যি-ই বড়ই দামী। আর তা অনুভব করতে ছাড়তে হয়েছে ইউনিভার্সিটির আঙ্গিনা!

আগেই বলেছি ইউনিভার্সিটি এমন ভাবে বাছাগুলোকে শেখায় জীবনের কোন কিছুই মনে হয়না অসম্ভব! রোজ ভোরে ঘুম ভেঙ্গে কোনরকম পড়ি কি মরি করে হাত মুখ ধুয়ে কোন একটা কাপড় গত্রে চড়িয়ে খাবারের অনুসন্ধানে হলের ভিতরে উপস্থিত খাদ্য(অখাদ্যই বলাই শোভনীয়) প্রদানকারীর দায়িত্তে নিয়োজিত দাদুদের আলস্য নিদ্রায় ব্যঘাত ঘটানো যে কেবল পণ্ডশ্রম তা জেনেই যখন বাতাসের গতিবেগ নিয়ে দল বেঁধে বেরুতাম, বের হয়েই পথের উপর দৃষ্টি পড়তেই যা নজরান্দাজ হত তাতে পেটের ভাণ্ডার খালি থাকার অভিশাপ আশীর্বাদ হয়ে সহস্র গুনে ঝরে পড়ত মা সরস্বতীর দানে! কিন্তু সে পদার্থ যতই দুর্গন্ধযুক্ত অবাঞ্ছিত হোক তাকে অবজ্ঞা করলে কি আর বিশ্ব-বিদ্যালয়ের শিক্ষা সম্পূর্ণ হয়? তাই পাশে থাকা প্রিয় বান্ধবী বেচারিকে বলেই দিতাম “দোস্ত খুব বেশি খিদে লেগেছে?” বান্ধবী বেচারির সে কি করুণ চাহুনি! সে করুণ চাহুনি দেখে আক্ষেপে বলেই দিতাম “ঐ দ্যাখ সকালের তরতাজা খাবার, কেউ দ্যাখার আগে খানিকটা হাতে তুলে খেয়ে নে! জিনিসটা যে রাতের ডেলিভারিকৃত সে গ্যারান্টি আমি নিজে নিচ্ছি”! এরপরে প্রিয় বান্ধবীর নয়ন থেকে উৎসারিত উতপ্ত গলিত লাভা-সম দৃষ্টি দেখে কেবল বুঝে নিতে হত আগামী পরিক্ষায় আমাকে লাইব্রেরীতে একাই বসে প্রস্তুতি নিতে হবে! সত্যি-ই বড়ই প্রিয় স্মরণীয় সে সব দিনের স্মৃতি!

কিছু একাকী অলস স্বপ্ন…

অলস সময়ে মাঝে মাঝে বোধ হয় স্বপ্ন দেখেই বুঝি কেটে যাবে। সুস্বপ্ন, দুঃস্বপ্ন, অবাঞ্ছিত স্বপ্ন তারও সাথে কাল্পনিক সপ্নেরও আড্ডা খুব জমে। আরও বেশি স্বপ্ন দেখি যখন দেখি দেশের যুবা গুলোকে অকারনে সময় এর কাটাকে ইচ্ছে করেই বারোর ঘরে ফেলে রাখছে। আর তা হবেই বা না কেন? বেশিরভাগ পরিবারের রোজগেরে নিয়মের মধ্যে অন্যতম একটা হল পরিবারের প্রধান দের সকাল বেলা পত্রিকা খুলে আরামে এক কাপ চা নিয়ে বসে বড় দুঃখের সঙ্গে আফসোস করা বলা- আহা! দেশটা বড্ড বুড়িয়ে গেছে! তারা জেনেই গিয়েছেন এই দেশের পক্ষে আর কিছু করা সম্ভব তো না…ই, বরং তাকে দিয়ে কিছু করানোর ভাবনাটাও মড়ার ঘাড়ে খাঁড়ার আঘাতের মতই অমানবিক। আর তারা পবিত্র গীতা আওড়ানোর মতই প্রতি মুহূর্তে যে পবিত্র বাণীর পুনঃ পুনঃ আবৃত্তি করেন তা হল “যদি হয় বাছা প্রবাসে নিবাস; চিরতরে হইবে স্বর্গবাস”! আর বাছারাও বেশ আদব কায়দার অনুসরণ করে। পরিবারের বড়দের অবাধ্য হবার দুঃসাহস না করে সরল মনেই মেনে নেয় এই দেশের কিছুই সম্ভব না! দেশ এখন লাইফ সাপোর্ট নিয়ে বেঁচে রয়েছে, যে কোন মুহূর্তেই আশঙ্কাজনক কিছু ঘটাই স্বাভাবিক। একটা স্বপ্ন (দুঃস্বপ্ন নাকি সুস্বপ্ন বলা উচিত বুঝছিনা) বেশ মাঝে মধ্যেই হানা দিয়ে চলে আমার অবচেতন চিন্তায়, মাঝে মধ্যে গুছিয়ে এনে সেটা সংরক্ষণ করতে চেয়েও অনেকবার ভুলে গিয়েছি! আজ আবারও স্বপ্নটা দেখেই সংরক্ষণের লোভ সামলাতে পারলাম না। আমার স্বপ্নটা কিছুটা এরকম-

আমরা যারা শিক্ষার পুলসিরাত পার হবার মহান দুঃসাহসে পরিবারের মান রক্ষার ব্রত নিয়ে সৃষ্টিকর্তা, ঠাকুর, দেবতার নাম জপে বিসমিল্লাহ্‌ বলে পা রাখি কম বেশি তারা সবাই জানি এটা কোন স্বত্বত্যাগের বাসনা নিয়েও নয় আবার কোন মহান উদ্দেশ্য সাধন করার পরিকল্পনাও নয়, এই শিক্ষার মহান ব্রত হচ্ছে “শিক্ষার ভূষণ, করগো যতন, তবেই পাইবি মহাদেবের দর্শন!” আর এই মহাদেবের দর্শনের মহান ব্রত নিয়েই যে তাদের শিক্ষিত হবার যজ্ঞে যোগদান সে তর্ক কোন অন্যদিন করাই বাঞ্ছনীয়! আর সে মহাদেবের দর্শনের বাসনা ছেড়ে যখন মহাদেবের বর্ষণের বাসনা এসে ভর করে অন্তরচিত্তে, তখন আমরাই স্ব-ইচ্ছায় লেগে যাই চিকিৎসা সেবা কিংবা প্রকৌশলী সেবা প্রদানের শিক্ষা অর্জনের তপস্যায়! জীবনের সকল সুখ ত্যাগ করে, দিন রাত ধ্যানমগ্নতায় এক তৃতীয়াংশ প্রানের প্রাণ বায়ু এই যায় কি ওই যায় হালে সে শিক্ষার আশীর্বাদ তো মেলে কিন্তু বিগত যৌবনার মনঃতৃষ্ণার জ্বালার মতই প্রখর হয়ে ওঠে মহাদেবের বর্ষিত দানের। আর রক্ত পিপাসু রাক্ষসের মতই মহাদেবের বারিধারা পান করতে থাকি চো চো শব্দে! আহা! কত যে আরামদায়ক সে অমৃত! আর আমার সপ্নের শুরুটাও এখানেই…… (দুঃখিত এতক্ষণ কেবলই ছাইপাশ বলে মূল্যবান সময় নষ্টের জন্য!)।

ধরা যাক দেশে রাজনিতির একতরফা তরফদারি নেই, রাজনীতিতে যে কেউই অংশ নিতে পারবে আর যে কেউ ই হতে পারবে দেশের প্রধান মন্ত্রী, কিংবা রাষ্ট্রপতি (আমি আমার সপ্নের কথা বলছি, কোন রাজনৈতিক উসকানি দেয়া মোটেই আমার উদ্দেশ্য নয়)।
কিন্তু যেই রাজনীতি করতে চাইবে তাকেই পূরণ করতে হবে কিছু নির্দিষ্ট শর্ত। হতে হবে সত্যিকারের স্ব-শিক্ষায় সু-শিক্ষিত। আর তারপর তাকে বাধ্যতামূলক ভাবেই নিতে হবে কিছু প্রশিক্ষণ (হতে পারে তা ৬ মাস কিংবা হতে পারে এক বছর)।
তাকে অনুধাবন করতে হবে দেশের নিম্নস্তর থেকে সর্বচ্চ স্তরের মানুষের জীবনী।দূর থেকে এফ. এম. রেডিওতে শুনে কিংবা পর্দায় দেখা চলচ্চিত্রের মতন নয়, তাকে থাকতে হবে সেইসব মানুষের সাথে, অংশ নিতে হবে সেই সব ধারার কাজে যা সমাজের সকল শ্রেণীর মানুষের কাজ, উপলব্ধি করতে হবে প্রতি মুহূর্তে তাদের জীবনী। আর এটা কেবল কোন রাজনৈতিক নেতা হবার বাসনা নিয়ে যারা থাকবে তাদের জন্যই নয়, যারা চিকিৎসা কিংবা প্রকৌশলী কিংবা লেখক হতে চাইবেন তাদেরকেও কাজ শুরু করার আগে গড়ে আনতে হবে এই প্রশিক্ষণ এর মধ্য দিয়ে। এখন যেমন আছে চিকিৎসা, প্রকৌশল, সমাজসেবার জন্য ভিন্ন পর্যায়ের শিক্ষা, তেমনি রাজনীতির শিক্ষা গতানুগতিক পৌরনীতি নয়, হতে হবে অনেক বেশি প্রায়োগিক, হতে হবে বিজ্ঞানসম্মত। আর রাজনীতিতে অংশ তারাই নিতে পারবেন যাদের রয়েছে ওই বিশেষ বিষয়ের উপরে শিক্ষার সনদ। ঠিক যেমনি থাকে কোন স্বনামধন্য উকিল, কিংবা কোন দাঁতের চিকিৎসকের। এছাড়া অন্যরা যাদের পূর্ণ বাসনা থাকবে রাজনীতিতে অংশ নেয়ার,তারা অতীতে কোন কারনে যদি ভিন্ন বিষয়ের উপরে জ্ঞান  নিয়ে থাকেন কিন্তু তবুও রাজনীতির সঙ্গেই যুক্ত হতে চান তারা রাজনীতির উপর পরিকল্পিত ভাবে গড়ে তোলা কোন সংক্ষিপ্ত মেয়াদে শিক্ষার স্তর পার করলেই প্রবেশ করতে পারবেন নিজেদের যোগ্যতা অনুযায়ী, কিন্তু মূল বিষয়ের লক্ষ্য হতে হবে হাতে কলমে নেয়া প্রশিক্ষণ। কোন ভাষণ, সম্ভাষণ নয়, সরাসরি মাঠে নেমে যোগ্যতার পরিচয় দিয়ে তবেই হতে পারবেন কোন পদের উপযুক্ত। এখানেই সমাপ্তি ভাববেন না দয়া করে, এর পরে তাদের কে হতে হবে অন্য একটা অহিংস লড়াইয়ের সম্মুখীন। এবার ছেড়ে দিতে হবে নির্বাচন জনগণের হাতে। জনগণ যাকে পছন্দ করবে সেই হবে সল্প মেয়াদি রাষ্ট্রপ্রধান, প্রধান মন্ত্রী, উপমন্ত্রি, সহ মন্ত্রী কিংবা অন্যান্য পদের পদধারি। হতে পারে সেটা ডিজিটাল ভোট ঠিক যেমন হয় আমাদের দেশে সঙ্গীত শিল্পের বাছাইকরণ। যেখানে ভোট কারচুপির কোন অভিযোগ উঠবে না। কারণ ভোটার যখন কেউ হবেন তখন তিনি  তার নামের সঙ্গে যে কোন একটি হাতের কেবলমাত্র একটি আঙ্গুল ব্যবহার করবেন তার ভোট প্রদানে আর এটাও হবে কম্পিউটার প্রযুক্তির মাধ্যমেই। ভোট কেন্দ্রে গিয়ে পুরো দেশের জনগণ কম্পিউটার আর মুঠোফোনের প্রযুক্তি ব্যবহার করে নিজের হাতের পূর্ব নির্বাচনকৃত আঙ্গুল দিয়েই নিশ্চিন্তে ভোট প্রদান করে হাতে কলমের কালী লাগিয়ে প্রফুল্লতার সাথে ঘরে ফিরে আসবে। যদি কেউ একই হাতের ভিন্ন কোন আঙ্গুল ব্যবহার করতে চায়, কিংবা একই আঙ্গুল বার বার ব্যবহার করতে চায় তবে কম্পিউটার তা সসম্মানে চিনে নিয়ে সেই হাতের ভোট নিতে অসম্মতি জানাবে। পূর্ণ স্বাধীনতাই থাকবে ব্যক্তির নিজের পছন্দের বা অপছন্দের। এই নির্বাচনে যারাই নির্বাচিত হবেন তাদের স্বতঃস্ফূর্ত আন্তরিক অংশগ্রহণ তার সাথে সমাজের সব বিজ্ঞ মানুষের উপদেশ, সমান নিঃস্বার্থ মনোভাব আর সহযোগিতায় শুরু হবে দেশ পরিচালনা।দেশের যে কোন দুর্বিষহ সময়ে সমাজের বিজ্ঞ ব্যক্তিরা তাদের মতামত প্রদান করবেন তরুন সমাজকে সঠিকভাবে পরিচালনের শপথ নিয়ে। এরপর ধিরে ধিরে অন্যরা যারা নীচের পদে মনোনীত হয়েছিলেন তাদের জন্যও সুযোগ থাকবে তাদের কাজের যোগ্যতা অনুযায়ী উপরের পদে উন্নীত হবার। অন্যদিকে যারা অন্যান্য পেশায় সেবা দান করার জন্য মনোনিবেশ করবেন তাদেরকে জন্য কেবল হাতে কলমে সমাজের সব শ্রেণীর মানুষের জীবনকে অনুধাবন করার প্রশিক্ষণ নেয়াই যথেষ্ট। আর প্রশিক্ষণ ব্যবস্থার মূলমন্ত্র হতে হবে দেশের মূল্যবোধকে অনুধাবন করানো, উদ্দেশ্য হবে সমাজের সব শ্রেণীর মানুষের সামাজিক সাথে মনস্তাত্ত্বিক অবস্থানকে উপলব্ধি করানো।

প্রচণ্ড দুঃসাহস বুকে জমিয়ে আজ বলেই দিলাম নিজের স্বপ্নের কথা, হয়ত কারো কারো মনের কথাও! যদি এতে কারো ব্যক্তিসত্তায় কিংবা চিন্তাধারায় বিন্দুমাত্র আঘাত হেনে থাকে, তবে আমি সবিনয়ে ক্ষমা চাইছি। আমার উদ্দেশ্য কাউকে আঘাত করে, কারো চিন্তাধারাকে অমর্যাদা করা নয়। এ নিতান্তই আমার অলস মনের একাকী অলস ভাবনা। নিতান্তই অলস সময়ের সঙ্গী এ ভাবনা!